আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
কর অঞ্চলে আয়কর মেলা শুরু: মিলবে যেসব সুবিধা

দেশের সব কর অঞ্চলে শুরু হয়েছে আয়কর মেলা। রোববার (১২ নভেম্বর) থেকে শুরু হওয়া এই মেলা চলবে আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত। দেশের সব কর অঞ্চলে এই মেলা চললেও শুধুমাত্র রাজধানীর কর অঞ্চলগুলোয় আয়কর রিটার্ন জমা দিয়ে আগামী ২০ থেকে ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত ট্যাক্স কার্ড সংগ্রহ করতে পারবেন করদাতারা। করদাতাদের রিটার্ন দাখিলের সুবিধার্থে কর অঞ্চলগুলোয় আয়কর মেলার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এবিআর)।

১১ নভেম্বর এনবিআরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ১২ থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত দেশের সব কর অঞ্চলে আয়কর মেলা শুরু হচ্ছে। সেখানে মেলার পরিবেশে সব ধরনের করসেবা পাওয়া যাবে। একইসঙ্গে করদাতাদের সুবিধার্থে ২০ থেকে ২৮ নভেম্বর ঢাকার সকল কর অঞ্চলগুলোতে ‘ইনকাম ট্যাক্স আইডি কার্ড’ দেওয়া হবে। ১ থেকে ৭ নভেম্বর আয়কর মেলায় করদাতাদের ব্যাপক সাড়া পাওয়ার পর এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে এনবিআর।

এদিকে, ৩০ নভেম্বর রিটার্ন জমার সময় শেষ হবে। এই সময়ে করদাতারা রিটার্ন দিতেই কর কার্যালয়ে ভিড় করবেন, এটাই স্বাভাবিক। তাই প্রতিটি কর অঞ্চলে করদাতাদের সহায়তার জন্য বুথ থাকবে। সেখানে ফরম পূরণ যাবতীয় কাজে সহায়তা করা হবে। ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ নম্বর (ই-টিআইএন), পুনর্নিবন্ধন, টিআইএনে ভুল-ত্রুটি সংশোধনসহ যেকোনো কর সেবাই মিলবে। এছাড়া নারী, প্রতিবন্ধী, মুক্তিযোদ্ধা, প্রবীণ করদাতাদের বিশেষ যত্নে কর সেবা দেওয়া হবে। এছাড়া অনলাইনে রিটার্ন জমা বা ই-ফাইলিং করার সুযোগ পাবেন।

এবারই প্রথমবারের মতো বেসরকারি চাকরিজীবীদের রিটার্ন দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। তাই এবার তুলনামূলক বেশি রিটার্ন জমা পড়বে বলে আশা করছে এনবিআর। বর্তমানে ৩১ লাখ টিআইএনধারী আছেন। গতবার সব মিলিয়ে ১৫ লাখের মতো টিআইএনধারী রিটার্ন জমা দিয়েছেন।

করদাতার তথ্য : করমুক্ত আয়সীমা আগের মতোই আড়াই লাখ টাকা রয়েছে। আড়াই লাখ টাকার বেশি করযোগ্য আয় হলেই আপনাকে তিন থেকে পাঁচ হাজার টাকা কর দিতে হবে। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন; অন্যান্য সিটি করপোরেশন এবং সিটি করপোরেশন এলাকার বাইরে ন্যূনতম কর যথাক্রমে ৫ হাজার টাকা, ৪ হাজার টাকা ও ৩ হাজার টাকা বহাল রাখা হয়েছে।

রিটার্ন দেওয়ার আগে যেসব কাগজপত্র সংগ্রহ করতে হবে সেগুলো হলো- গতবারের রিটার্ন জমার কপি; সংশ্লিষ্ট সার্কেলের রসিদ; জমি, ফ্ল্যাট কেনাবেচার দলিলের ফটোকপি; সঞ্চয়পত্র, এফডিআর, ডিপিএস ভাঙানোর নগদায়ন সনদ; গাড়ির ফিটনেস জমার সময় অগ্রিম কর দেওয়ার রসিদ; উৎসে আয়কর দিলে এর রসিদ; সব ধরনের ব্যাংক হিসাবের বিবরণী; শেয়ার কেনাবেচা ও লভ্যাংশ পাওয়ার দলিল ইত্যাদি।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, গতবারের মতো এবার নভেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে কর সপ্তাহ পালন করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, ১ থেকে ৭ নভেম্বর আয়কর মেলায় ২ হাজার ২১৭ কোটি টাকার কর আদায় হয়েছে। রিটার্ন জমা দিয়েছেন সাড়ে ৩ লাখের মতো করদাতা। আর সেবা নিয়েছেন ১১ লাখ ৭০ লাখ মানুষ। গতবারের মেলায় ২ হাজার ১১২ কোটি ৯৬ লাখ ৬৭ হাজার টাকার কর আদায় হয়েছিল। রিটার্ন জমা দিয়েছিলেন ১ লাখ ৯৪ হাজার ৫৯৮ জন। সেবা নিয়েছিলেন ৯ লাখ ২৮ হাজার ৯৭৩ জন। এ হিসাবে এবার মেলায় কর বেড়েছে ৪ দশমিক ১২ শতাংশ। রিটার্ন জমা বেড়েছে ৭২ দশমিক ৪ শতাংশ। আর সেবা গ্রহণকারীর সংখ্যা বেড়েছে ২৫ দশমিক ৯ শতাংশ। এবার রাজধানী ঢাকাসহ দেশের ৫৬টি জেলা শহরে, ৩৪টি উপজেলা, ৭১টি উপজেলায় (ভ্রাম্যমাণ) আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হয়। রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নিমার্ণাধীন জাতীয় রাজস্ব ভবনে ঢাকার মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

সম্পাদনা: পিকে/আরএ/এসএ

মন্তব্য