আমাদের মেইল করুন abasonbarta2016@gmail.com
গৃহকর পুনর্মূল্যায়ন স্থগিত, সব সিটিতে ট্যাক্স অটোমেশনের উদ্যোগ

দেশের সব সিটি করপোরেশনের ট্যাক্স অটোমেশনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এর ফলে বর্তমানে চলমান পঞ্চবার্ষিক গৃহকর পুনর্মূল্যায়ন সংক্রান্ত সব কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে। এটি সম্পূর্ণ হলে পুনরায় অ্যাসেসমেন্ট কার্যক্রম চালু হবে। গত ২৬ নভেম্বর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়।

বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, সব সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভার ট্যাক্স কার্যক্রম অটোমেশনের (স্বয়ংক্রিয়) আওতায় আনা হবে। এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত এসব কার্যক্রম স্থগিত থাকবে। নতুন পদ্ধতি চালু হলে ঘরের মালিক ঘরে বসেই তার গৃহকর কত হলো জানতে পারবেন। এতে অনলাইন পেমেন্টেরও সুযোগ থাকবে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা বলেন, চসিক গৃহকর আদায়ে অটোমেশন পদ্ধতি গ্রহণ করবে। ফলে বর্তমানে চলমান পঞ্চবার্ষিক গৃহকর পুনর্মূল্যায়ন সংক্রান্ত সব কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে চসিক এ সিদ্ধান্ত নেয় বলে জানা যায়।

বৈঠকে সূত্রে জানা যায়, অটোমেশনের জন্য ইতিমধ্যে তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রীকেও অনুরোধ জানানো হয়েছিল। তাছাড়া ডিজিটাল বাংলাদেশের অংশ হিসেবেও এ অটোমেশন হচ্ছে। এর সুফল করদাতা এবং চসিক উভয়ই পাবে। তখন ঘরে বসে গৃহকরের পরিমাণ জানা যাবে। একই সঙ্গে অনলাইনে পরিশোধও করা যাবে বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন মন্ত্রণালয়ের সার্কুলার অনুযায়ী এবং মেয়াদ শেষ হওয়ার পর পঞ্চবার্ষিকী কর মূল্যায়ন শুরু করে। এসেসমেন্টের পর আবেদনকারীদের আপিল শুনানিও শুরু হয়েছে। জানা গেছে, গত ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত ৩ হাজার ৯৭৮টি আপিল নিষ্পত্তি করেছে চসিক। আপিল আবেদন পড়েছে ৪ হাজার ৩৩৪টি। আপিলে গড়ে ৭০ শতাংশ গৃহকর কমানো হয়েছে মর্মে পত্রিকান্তরে প্রকাশ। চসিক এর ভাড়াভিত্তিক গৃহকর মূল্যায়নের বিরুদ্ধে আপত্তি জানিয়ে মালিকরা আন্দোলনে নেমেছে ‘চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদ’ নামক একটি সংগঠনের ব্যানারে। তারা পূর্বের নিয়মে অর্থাৎ আয়তন ভিত্তিক (বর্গফুট) এসেসমেন্ট এর দাবি জানায়।

সম্পাদনা: জেডএইচ/পিকে/আরবি

মন্তব্য