আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
রিহ্যাব মেলার শেষ দিনে উপচেপড়া ভিড়, রেডি ফ্ল্যাটের চাহিদা বেশি

আবাসন মালিকদের শীর্ষ সংগঠন রিয়েল এস্টেট এ্যান্ড হাউজিং এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব) আয়োজিত পাঁচ দিনব্যাপী ফেয়ার জমে উঠেছে। আগ্রহী ক্রেতাদের ভিড়ে কানায় কানায় পূর্ণ মেলা। মন্দা থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর পথে হাঁটতে থাকা আবাসন খাত সংশ্লিষ্টরা এবারের মেলা নিয়ে বেশ আশাবাদী। নাম রেজিস্ট্রেশন, প্লট বা ফ্ল্যাট বুকিং ভালো হচ্ছে। তবে এবারের মেলায় গ্রাহকদের মাঝারি আকৃতির ফ্ল্যাটের পাশাপাশি রেডি ফ্ল্যাটের চাহিদা বেশি। কিন্তু রেডি ফ্ল্যাট খুবই কম পাওয়া যাচ্ছে। বেশিরভাগ কোম্পানির রেডি ফ্ল্যাট নেই। তবে এ ক্ষেত্রে কোম্পানিগুলো নির্মাণাধীন প্রকল্পের দিকে ক্রেতাদের আগ্রহী করছে। মেলার
শেষ দিন সোমবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মেলা ঘুরে এমন চিত্র লক্ষ্য করা গেছে।

মেলায় আগত বেসরকারি ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন বলেন, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় একটি রেডি ফ্ল্যাট খুঁজতে মেলায় এসেছি। কিন্তু কোনো রেডি ফ্ল্যাট পেলাম না। নির্মাণাধীন প্রকল্পের ফ্ল্যাট পাওয়া গেছে। কিন্তু এসব প্রকল্পের ফ্ল্যাট কিনতে তো খুব ভয় লাগে। তিন মাসের কথা বলে বুকিং দিয়ে তিন বছরেও বুঝে পাব কিনা, তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। এ কারণে কোথাও বুকিং দিইনি, এখনও রেডি ফ্ল্যাট খুঁজছি।

লালবাগের বাসিন্দা ও প্লাস্টিক ব্যবসায়ী মো. ওমর ফারুক বলেন, ধানমণ্ডি এলাকায় রেডি ফ্ল্যাট খুঁজতে এসেছি। কিন্তু মেলার স্টলগুলো তন্ন তন্ন করে খুঁজেও কোনো রেডি ফ্ল্যাট পেলাম না। বিভিন্ন কোম্পানি তাদের চলমান প্রকল্পে ফ্ল্যাট বুকিং দিতে বলছে।

আসর্ট হাউজিং অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের কর্মকর্তা মো. আতিকুর রহমান বলেন, রাজধানীর বেশকিছু লোকেশনে আবাসন অ্যাপার্টমেন্ট রয়েছে। এর মধ্যে বেইলি রোডে একটি রেডি ফ্ল্যাট রয়েছে। আর বাকি বেশিরভাগ প্রকল্পের নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে।

স্কাইটাচ ডেভেলপার্স লিমিটেডের প্রকল্প ব্যবস্থাপক শাহজাহান সিরাজ বলেন, উত্তরা, মোহাম্মদপুর, লালমাটিয়া ও ধানমণ্ডিতে আমাদের চলমান কয়েকটি প্রকল্প রয়েছে। এবারের মেলায় আমরা এসব প্রকল্পের ফ্ল্যাট বিক্রি করছি। ক্রেতাদের সাড়া বেশ ভালো। তবে বেশিরভাগ ক্রেতাই রেডি ফ্ল্যাট চাচ্ছেন, যেটা আমরা দিতে পারছি না।

রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট (প্রথম) লিয়াকত আলী ভূঁইয়া বলেন, এবারের রিহ্যাব ফেয়ার বেশ সাড়া ফেলেছে। মাঝারি ও রেডি ফ্ল্যাটের ব্যাপক চাহিদা লক্ষ্য করছি। চাহিদার তুলনায় এ ধরনের ফ্ল্যাটের কিছুটা কমতি রয়েছে। এ কারণে কোম্পানিগুলো স্বল্প সময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে, এমন ফ্ল্যাটের প্রতি ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করছে। আগ্রহী ক্রেতারা এসব ফ্ল্যাটও বুকিং করছেন। এসব ফ্ল্যাট অল্প সময়ে ক্রেতারা বুঝে পাবেন। কেননা, রেডি ফ্ল্যাট সাধারণত খুব কমই থাকে।

গত ২১ ডিসেম্বর বাণিজ্যমন্ত্রীর উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে শুরু হওয়া রিহ্যাব ফেয়ার চলবে সোমবার রাত ৯টা পর্যন্ত। এবারের মেলায় ২০৫টি স্টল রয়েছে। এই ফেয়ারে ৩০টি বিল্ডিং ম্যাটেরিয়ালস ও ১৩ অর্থলগ্নীকারী প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। আর কো-স্পন্সর হিসেবে আছে মোট ২৪টি প্রতিষ্ঠান।

মেলায় দুই ধরনের টিকিট রয়েছে। একটি সিঙ্গেল এন্ট্রি অপরটি মাল্টিপল এন্ট্রি। সিঙ্গেল টিকিটের প্রবেশ মূল্য ৫০ টাকা। আর মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিটের প্রবেশ মূল্য ১০০ টাকা। মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিট দিয়ে একজন দর্শনার্থী মেলার সময় ৫ বার প্রবেশ করতে পারবেন। এন্ট্রি টিকিটের প্রাপ্ত সম্পন্ন অর্থ দুঃস্থদের সাহায্যার্থে ব্যয় করা হবে বলে জানায় রিহ্যাব।

শীতকালীন এই মিলনমেলায় এন্ট্রি টিকিটের রাফ্রেল ড্র তে রয়েছে আকর্ষণীয় মূল্যবান পুরস্কার। এ বছর রাফেল ড্র এর ১ম পুরস্কার- ১টি প্রাইভেট কার, ২য় পুরস্কার একটি মোটরসাইকেল, ৩য় পুরস্কার ১টি ফ্রিজ, ৪র্থ পুরস্কার-১টি ৪৩ ইঞ্চি এলইডি টেলিভিশন, ৫ম পুরস্কার-১টি ওয়াশিং মেশিন এবং ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম পর্যন্ত মোবাইল ফোন। মেলার শেষ দিন ২৫ ডিসেম্বর রাত ৯টায় মেলা প্রাঙ্গণে রাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হবে। বিজয়ীদের নাম ও টিকিট নং রিহ্যাব ওয়েব সাইটয়ে প্রচার করা হবে। বি:দ্র: পুরস্কার গ্রহণের সময় বিজয়ীকে টিকিটের সংরক্ষিত অংশটি প্রদর্ন করতে হবে।

সম্পাদনা: আরএ/এসকে/এমএন

মন্তব্য