আমাদের মেইল করুন abasonbarta2016@gmail.com
হক হোম অ্যান্ড বিল্ডার্সে বুকিং দিলেই ৫ লাখ টাকা ছাড়

সাধ আর সাধ্যমত পছন্দের আবাস খুঁজে পেতে বাড়ি, প্লট বা জমির খোঁজে অনেকেই ভিড় করেছেন আবাসন মেলায়। দাম, বুকিং মানি, ডাউন পেমেন্ট, প্রকল্পের অবস্থানের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে মধ্যম বা মাঝারি আকারের ফ্ল্যাট খুঁজছেন ক্রেতারা। পাঁচ দিনব্যাপী চলমান এই রিহ্যাব ফেয়ারে ক্রেতাদের সাধ্যের মধ্যে ফ্ল্যাট দিচ্ছে হক হোম অ্যান্ড বিল্ডার্স লিমিটেড। মেলায় অংশ নেওয়া প্রতিষ্ঠানটির যার স্টল নম্বর ২৮। মেলা উপলক্ষে প্রতিটি ফ্ল্যাট ক্রেতাদের জন্য ৫ লাখ টাকা ছাড়ের ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

এ বিষয়ে রোববার (২৪ ডিসেম্বর) সকালে মেলার স্টলে আলাপকালে হক হোম অ্যান্ড বিল্ডার্স লিমিটেডর সিভিল ইঞ্জিনিয়ার এমদাদুল হক মিলন আবাসন বার্তার প্রতিবেদক রাজু আহমেদকে বলেন, আমাদের কোম্পানির সব ফ্ল্যাট বিক্রির ক্ষেত্রে নগদ ৫ লাখ ছাড়ের অফার চলছে। মেলায় আসা ক্রেতা-দর্শনার্থীরা আমাদের ফ্ল্যাট দেখছেন এবং কেউ কেউ কেনার আশ্বাসও দিচ্ছেন।

আলাপকালে মিলন জানান, রাজধানীর গুলশান-২ নতুন বাজার, ভাটারা, বসুন্ধারা ও ধানমন্ডি এলাকায় আমাদের রেডি ফ্ল্যাট রয়েছে। আর জিগাতলা, মোহাম্মদপুর, আদাবর ও মিরপুরে ফ্ল্যাটের কার্যক্রম চলছে। মেলা উপলক্ষে গুলশানের ভাটারা হক প্যালেস প্রতি পার স্কয়ার ফিট ৪৩০০, ক্যাসালে ৪২০০, মিরপুরে ৬২০০, শঙ্করে ৬২০০, মোহাম্মদপুর শেকেরটেক ৩৮০০ ও বসুন্ধারার হক রিয়েন্সে ৫৬০০ টাকায় বিক্রি চলছে।

ইঞ্জিনিয়ার এমদাদুল হক আরও বলেন, মেলা হচ্ছে ক্রেতা-বিক্রেতার সেতুবন্ধন। একজন ক্রেতা যেন এক ছাদের নিচে প্লট, ফ্ল্যাট ও ঋণসংক্রান্ত বিষয়গুলোর সম্পর্কে খোঁজ নিতে পারেন, এ জন্যই মেলার আয়োজন। গত তিনদিন প্রচুর লোকসমাগম ঘটেছে। বিপুলসংখ্যক ক্রেতা-দর্শনার্থীর আগমনে আবাসন ব্যবসায়ীরা আশান্বিত।

মিলন বলেন, প্রতিদিন আমরা ৪ থেকে ৫টা ফ্ল্যাট বিক্রি করছি। আশা করছি, এই দুই দিনে আরও ৭ থেকে ৮টি ফ্ল্যাট বিক্রি করতে পারবো।

২১ ডিসেম্বর বিআইসিসিতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রীর উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে শুরু হওয়া রিহ্যাব ফেয়ার ২০১৭ চলবে আগামীকাল সোমবার পর্যন্ত। আবাসন মালিকদের শীর্ষ সংগঠন রিয়েল এস্টেট এ্যান্ড হাউজিং এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (রিহ্যাব) আয়োজিত মেলায় এবার ২০৫টি স্টল রয়েছে। এই ফেয়ারে ৩০টি বিল্ডিং ম্যাটেরিয়ালস ও ১৩ অর্থলগ্নীকারী প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। আর কো-স্পন্সর হিসেবে আছে মোট ২৪টি প্রতিষ্ঠান।

সম্পাদনা: আরএ/এমএন/জেডএইচ

মন্তব্য