আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
রিহ্যাবের আবাসন মেলার পুরস্কার পেলেন যারা

প্রতিবছরের মতো এবারো বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে দেশের আবাসন শিল্পখাতের সবচেয়ে বড় আয়োজন রিহ্যাব ফেয়ার ২০১৭ এর র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রথম পুরস্কার হিসেবে একটি প্রাইভেট কার পেয়েছেন রাফা নামে এক সৌভাগ্যবান ব্যাক্তি। আর দ্বিতীয় পুরস্কার হিসেবে মো. আশিকুজ্জামান পেয়েছেন একটি মোটরসাইকেল। রাফার টিকিট নম্বর ০৯১১৮, মোবাইল ০১৭১২-৮৯৪২০০। আর আছিফুজ্জামানের টিকিট নম্বর ০৯৯৬৬, মোবাইল ০১৯৮-৭৭৮৪৩৭৫। পাঁচ দিনব্যাপী রিহ্যাব মেলার শেষ দিন সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) রাতে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত মেলা প্রাঙ্গণে এন্ট্রি টিকিটের র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হয়। র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন রিহ্যাবের সভাপতি মো: আলমগীর সামছুল আলামিন (কাজল)। প্রথমে তিনি ১০ নম্বর সিরিয়াল থেকে র‌্যাফেল ড্র’র টিকিট নম্বর ঘোষণা করেন।

আলমগীর সামছুল আলামিন জানান, তৃতীয় পুরস্কার একটি ৪০ ইঞ্চি এলইডি টেলিভিশন পেয়েছেন সাজ্জাদ হোসেন। টিকিট নম্বর ১৯৪৫২, মোবাইল ০১৭১৫-৪০৫৪৬১। ৪র্থ পুরস্কার ১টি সাড়ে ১২ সেফটি ফ্রিজ পেয়েছেন মো. আলী সাদিক। টিকিট নম্বর ১৮৪০৭, মোবাইল ০১৮১৩-২৫৬৪৬৫। ৫ম পুরস্কার একটি ওয়াশিং মেশিন পেয়েছেন ড. এম আর মৌল্লিক। টিকিট নম্বর ১৯৫৩৭, মোবাইল ০১৭১৬-৮৪৫৩৩০। ৬ষ্ঠ পুরস্কার একটি ড্রিভ ফ্রিজ পেয়েছেন রাশেদুল ইসলাম। টিকিট নম্বর ০৪৩৪৭, মোবাইল ০১৬৩৩-৩১০৭৫৫। ৭ম পুরস্কার একটি মোবাইল পেয়েছেন নাহিদ সাহাদ। টিকিট নম্বর ২০২৫৩, মোবাইল ০১৭৭২-৩৯০৩০৯। ৮ম পুরস্কার একটি মোবাইল ফোন পেয়েছেন আনসার উদ্দিন আহমেদ। টিকিট নম্বর ০৫৩৩৭, মোবাইল ০১৮১১-৪০৯০১১। ৯ম পুরস্কার মাইক্রো ওভেন পেয়েছেন শাহ আলম সরকার। টিকিট নম্বর ১২৪১৮, মোবাইল ০১৭৩০-৩৩৫২৯৫। সর্বশেষ ১০ নম্বর পুরস্কার এয়ার কুলার পেয়েছেন মনিরুল ইসলাম। টিকিট নম্বর ১১৩৫১, মোবাইল ০১৯৩৫-৬৮৫১৭১।

ফেয়ারের প্রবেশ মুখে বাম পাশে প্রদর্শিত প্রাইভেট কারের নম্বর দেয়া আছে- ঢাকা মেট্রো- ও/১৯১।

রিহ্যাবের জনসংযোগ কর্মকর্তা রশিদ বাবু আবাসন বার্তাকে জানিয়েছেন, বিজয়ীদের নাম ও টিকিট নং রিহ্যাব ওয়েব সাইটয়ে প্রচার করা হবে। বি:দ্র: পুরস্কার গ্রহণের সময় বিজয়ীকে টিকিটের সংরক্ষিত অংশটি প্রদর্শন করতে হবে।

এদিকে, রিহ্যাব ফেয়ার সফল ভাবে সম্পন্ন করায় রিহ্যাব কর্মকর্তা ও ফেয়ার স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যানসহ সকলকে আলমগীর শামসুল আলামীন ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, এ বছর ফেয়ারে ২৭ হাজার ক্রেতা ও দর্শনার্থী প্রবেশ করেছে। সবার সহযোগীতায় পাঁচ দিনব্যাপী রিহ্যাব ফেয়ার ২০১৭ সুন্দর ও সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন হয়েছে। এ জন্য সকলকে ধন্যবাদ। আগামী মেলায় আরও ক্রেতা ও দর্শনার্থী বাড়বে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

র‌্যাফেল ড্র ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন- রিহ্যাব পরিচালক ও ফেয়ার স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান শাকিল কামাল চৌধুরী, পূর্বাচল মেরিন সিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্যাপ্টেন মো: শাহ আলম ও এস এম ইমদাদুল হোসাইনসহ আরও অনেকে।

এদিকে, অনুষ্ঠান শেষে প্রথম পুরস্কার বিজয়ী রাফা’র সাথে মুঠোফোনে কথা বলেন আবাসন বার্তা’র প্রধান বার্তা সম্পাদক সৈয়দ এস এম জিন্নাহ। ফোনটি রাফা না ধরে রিসিভ করেন তার নানা মো: আব্দুল বারি (৫৩)। তিনি এস এম জিন্নাকে বলেন, আসছে নতুন বছর রাফাকে স্কুলে ভর্তি করানো হবে। এ জন্য একটি গাড়ি খুঁজছিলাম। পরে রিহ্যাব মেলায় এসে তিনি রাফার নামে একটি টিকিট কনেন।

আব্দুল বারি বলেন, আবাসন মেলার প্রথম পুরস্কার প্রাইভেট কার পেয়ে রাফা, তিনিসহ পরিবারের সবাই খুশি। এ জন্য রিহ্যাব পরিবারকে তিনি ধন্যবাদ জানান।

‘স্বপ্নীল আবাসন, সবুজ দেশ লাল সবুজের বাংলাদেশ’ এই স্লোগানে গত বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এর উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে শুরু হয় দেশের আবাসন শিল্প খাতের সবচেয়ে বড় আয়োজন ‘রিহ্যাব ফেয়ার-২০১৭।  রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) রিহ্যাব আয়োজিত পাঁচ দিনব্যাপী চলমান এই মিলনমেলা শেষ হয় সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) রাত ৯টায়।  প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলা প্রাঙ্গণে প্রবেশের সুযোগ পান ক্রেতা ও দর্শনার্থীরা।

রিহ্যাব কর্মকর্তারা আবাসন বার্তার প্রতিবেদক রাজু আহমেদকে জানিয়েছেন, এ বছর ফেয়ারে অংশ নেয় ২০৫টি স্টল।  এই ফেয়ারে ৩০টি বিল্ডিং ম্যাটেরিয়ালস ও ১৩ অর্থলগ্নীকারী প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়।  আর কো-স্পন্সর হিসেবে মোট ২৪টি প্রতিষ্ঠান ছিলো।  এ বছর এন্ট্রি টিকিট এবং ড্রপবক্সের স্পন্সর হয় বি প্রপার্টি ডটকম।  আর টিকিট কাউন্টারের স্পন্সর হয় “নাওয়াল কনস্ট্রাকশন লিমিটেড”।  এছাড়া, এবারও মেলায় দর্শনার্থীদের প্রবেশে সিঙ্গেল এবং মাল্টিপল এন্ট্রির জন্য দুই ধরনের টিকিটের ব্যবস্থা রাখা হয়।  সিঙ্গেল এন্ট্রি টিকিটের মূল্য ৫০ টাকা এবং মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিটের মূল্য ১০০ টাকা। মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিট দিয়ে একজন দর্শনার্থী মেলার সময় পাঁচবার প্রবেশ করতে পারেন।

সম্পাদনা: আরএ/আরবি/এসকে

মন্তব্য