আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
‘রোহিঙ্গাদের জন্য রাখাইনে বাড়িঘর করে দিচ্ছে ভারত’

রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রতাবর্তনে ভারত সরকার কাজ করছে বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা। তিনি বলেন, কাজ সব সময় দেখিয়ে করতে হয়না। বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গারা যাতে দেশে ফিরে নিরাপদে থাকতে পারে, সে জন্য মিয়ানমারের রাখাইনে বাড়িঘর তৈরি করে দিচ্ছে ভারত সরকার। ইতিমধ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য এক হাজার মেট্রিক টন ত্রাণ সামগ্রী দিয়েছে ভারত সরকার।

বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) দুপুরে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে শ্রিংলা এসব কথা বলেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন ভারতীয় দূতাবাসের ফাস্ট সেক্রেটারী নবনীতা চক্রবতী, প্রেস এটাশি রঞ্জন মন্ডল।

ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যু শুধু বাংলাদেশ নয়, পাশ্ববর্তী সব দেশের নিরাপত্তার জন্য খুবই গুরত্বপূর্ণ একটি বিষয়।

ভারত রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের পাশে নেই এই ধারনাটি ভুল উল্লেখ করে হর্ষ বর্ধন বলেন, বাংলাদেশ ও মায়ানমার দুই দেশই ভারতের বন্ধু প্রতিম দেশ। এজন্য ভারত শুরু থেকেই বাংলাদেশের সব সময় পাশে আছে।

বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গাদের আশ্রয়, খাদ্য ও বাসস্থান দিয়ে খুবই মহৎ একটি কাজ করেছে উল্লেখ করে ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের পাশেই রয়েছে ভারত।

ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, রোহিঙ্গাদের দ্রুত প্রতাবর্তনে ভারত সরকার কাজ করছে। এজন্য রাখাইন স্ট্যাটে তাদের আবাসনের জন্য ভারত সরকার ঘর তৈরী করে দিচ্ছে। ইতিমধ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য এক হাজার মেট্রিক টন ত্রাণ সামগ্রী দিয়েছে ভারত সরকার।

এর আগে ভারতীয় হাইকমিশনার কুমুদিনী কমপ্লেক্স চত্বরে পৌঁছালে সেখানে তাঁকে স্বাগত জানান কুমুদিনী কল্যাণ সংস্থার ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজীব প্রসাদ সাহা, পরিচালক শ্রীমতি সাহা, ভাষা সৈনিক প্রতিভা মুৎসুদ্দি, কুমুদিনী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. আব্দুল হালিম, কুমুদিনী হাসপাতালে পরিচালক ডা. দুলাল চন্দ্র পোদ্দার, সহকারী প্রশাসক সৈয়দ হায়দার আলী প্রমুখ।

ভারতীয় হাইকমিশনার পরে কুমুদিনী হাসপাতাল, ভারতেশ্বরী হোমস, কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজ নার্সিং স্কুল ও কলেজ পরিদর্শন করেন। এ সময় রাষ্ট্রদূত ভারতেশ্বরী হোমসের ছাত্রীদের মনোজ্ঞ শারীরিক কসরত উপভোগ করেন।

সম্পাদনা: আরএ/আরবি/এমএন

মন্তব্য