আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
লিফট নিয়ে জটিলতা, ফ্ল্যাটে ওঠা পেছাবে?

রাজউকের উত্তরা অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্পের গ্রাহকেরা কবে তাঁদের ফ্ল্যাটে উঠতে পারবেন, তা নিয়ে নতুন করে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। কথা ছিল মার্চে প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পর গ্রাহকদের আনুষ্ঠানিকভাবে ফ্ল্যাটের চাবি দেওয়া হবে। কিন্তু ২৯টি ভবনে এখন পর্যন্ত লিফট বসেনি। লিফট কেনার দরপত্র বাতিল করা হয়েছে।

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ও মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্রে জানা যায়, গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী মোশাররফ হোসেনের আপত্তির মুখে দরপত্র বাতিল করা হয়েছে। নতুন করে এখন দরপত্র আহ্বান করা, কার্যাদেশ দেওয়া, লিফট বসানো ইত্যাদি কাজ মার্চে দূরে থাক, কবে নাগাদ সম্ভব তা এখন পর্যন্ত অনিশ্চিত।

রাজউকের উত্তরা অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্পে এ-ব্লকের ৭৯টি ১৬ তলা ভবনের মধ্যে ৩৯টি ভবন নির্মাণ করা হয়েছে গণপূর্ত অধিদপ্তরের মাধ্যমে। এগুলোর মধ্যে ১০টিতে লিফট বসানো হয়েছে। বাকি ভবনগুলোর মোট ৫০টি লিফটের জন্য গণপূর্ত অধিদপ্তর সর্বনিম্ন দরদাতা হিসেবে ফুজি কোম্পানি লিমিটেডকে নির্বাচন করে। সেমতো কার্যাদেশ দেওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছিল অধিদপ্তর। বিষয়টি জানতে পেরে প্রশ্ন তোলেন গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী মোশাররফ হোসেন। পরে তিনি তা বাতিল করে দেন। ২৯টি ভবনে ফ্ল্যাটের সংখ্যা ২ হাজার ৪৩৬টি। বাকি ভবনগুলোতেও লিফট সংযোগ দেওয়ার কাজ শেষ হয়নি।

যোগাযোগ করা হলে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী মোশাররফ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘যে কোম্পানিকে কার্যাদেশ দেওয়া হয়েছে, সেটি পরিচিত নয়। আমি গুণমানসম্পন্ন লিফট চাই। যেসব কোম্পানির লিফট সরবরাহে অভিজ্ঞতা আছে, সবার পরিচিত, সেসব কোম্পানির মাধ্যমে কাজটি করার কথা বলেছি। নতুনদের দিয়ে রক্ষণাবেক্ষণেও তো সমস্যা দেখা দিতে পারে।’

লিফট না থাকলে গ্রাহকদের ফ্ল্যাটে ওঠা পিছিয়ে যাবে কি না, এমন প্রশ্নে পূর্তমন্ত্রী বলেন, ‘এ জন্য দরপত্রের কাজটি গণপূর্ত অধিদপ্তরের পরিবর্তে নতুন করে রাজউককেই করতে বলেছি। চেষ্টা করা হচ্ছে সময়মতোই লিফট বসিয়ে ফ্ল্যাট বুঝিয়ে দিতে।’

মন্ত্রীর নির্দেশ অনুসারে রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী (প্রকল্প) এ এস এম রায়হানুল আবেদীন গত সপ্তাহে গণপূর্ত অধিদপ্তরে দরপত্র বাতিলবিষয়ক চিঠি পাঠান। চিঠিতে বলা হয়, রাজউক কেন্দ্রীয়ভাবে লিফট সরবরাহ ও স্থাপনকরণ কাজটি সম্পন্ন করবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

যোগাযোগ করা হলে গণপূর্ত অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী জামিলুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, গণপূর্ত অধিদপ্তর লিফটের কাজটি করছে না। রাজউকই করবে বলে চিঠি এসেছে।

এ বিষয়ে ফুজি কোম্পানির সঙ্গে কথা বলতে চাইলে দায়িত্বশীল কেউ কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

উত্তরা তৃতীয় প্রকল্প এলাকার ১৮ নম্বর সেক্টরে এই অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্প। ৭৯টি ভবনে ১ হাজার ৬৫৪ বর্গফুটের ৬ হাজার ৬৩৬টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রথম আলো

মন্তব্য