আমাদের মেইল করুন abasonbarta2016@gmail.com
সরকারি চাকুরেদের জন্য মিরপুরে ১৩ তলা ভবনে হচ্ছে ২৮৮টি ফ্ল্যাট

রাজধানী ঢাকা মহানগরীতে সরকারি চাকরিজীবীদের চাহিদার তুলনায় আবাসনের ঘাটতি রয়েছে। রাজধানীতে সরকারি চাকরিজীবীদের মাত্র ৮ শতাংশ আবাসিক সুবিধা পেয়ে থাকেন। তাই অনেকই বেসরকারি বাসায় থাকেন। এর ফলে অনেক ক্ষেত্রেই তাদের নিম্নমানের বাসায় থাকতে হয়। এতে তাদের কর্মদক্ষতায় বিরূপ প্রভাব পড়ে। এজন্য সরকারি কর্মকর্তাদের আবাসন সংকট দূর করতে রাজধানীর মিরপুরে ২৮৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। মিরপুর ৬ নম্বর সেকশনের শিয়ালবাড়ি এলাকায় ৬ দশমিক ৩৬ একর জমিতে ছয়টি ১৩ তলা ভবনে হবে এসব ফ্ল্যাট। ২০২০ সালের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে গণপূর্ত অধিদপ্তর।

রোববার (৪ জানুয়ারি) রাজধানীর শেরেবাংলানগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারসভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ সংক্রান্ত ‘ঢাকাস্থ মিরপুরের ৬ নং সেকশনে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ২৮৮টি আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়।

এদিন একনেক বৈঠকে ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্পটিসহ প্রায় সাত হাজার ৪২৪ কোটি টাকার ১১টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠকের পর এক সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানান, সবগুলো প্রকল্পই সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়িত হবে।

সরকারি চাকুরেদের জন্য মিরপুরের আবাসন প্রকল্পটির বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, প্রকল্পটির আওতায় প্রতিটি ১৫০০ বর্গফুট আয়তনের ১৪৪টি ফ্ল্যাট বিশিষ্ট তিনটি এবং প্রতিটি ১২৫০ বর্গফুট আয়তনের ১৪৪টি ফ্ল্যাট বিশিষ্ট আরো তিনটি ১৩ তলা ভবন নির্মাণ করা হবে।

বৈঠকে অনুমোন পাওয়া অন্য প্রকল্প হচ্ছে: উপজেলা ও ইউনিয়ন সড়কে দীর্ঘ সেতু নির্মাণ  (তৃতীয় সংশোধিত) প্রকল্প; এর ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ২৮৭ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। ফরিদপুর গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন (তৃতীয় সংশোধিত) প্রকল্প; এর ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৪৮৯ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। ফরিদপুর গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন (তৃতীয় সংশোধিত) প্রকল্প”। এর ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৭০৯ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। সমন্বিত কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প, এর ব্যয় ১০৭ কোটি টাকা। র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর নির্মাণ প্রকল্প। এতে ব্যয় হবে ৪৯৫ লাখ ১০ কোটি টাকা। ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ইন্দ্রপুল হতে চক্রশালা পর্যন্ত বাঁক সরলীকরণ প্রকল্প, এতে ব্যয় হবে ১০৩ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। বিএএফ ঘাঁটি জহুরুল হক, চট্টগ্রামে বিমান সেনা প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট স্থাপন প্রকল্প। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ২১৯ কোটি ২৯ লাখ টাকা। বরিশাল টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটকে শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে উন্নতিকরণ (তৃতীয় সংশোধিত) প্রকল্প, এতে ব্যয় হবে ১২৫ কোটি ১৮ লাখ টাকা। শেখ রাসেল টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট, জামালপুর (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প। এতে ব্যয় হবে ১০১ কোটি ১৬ লাখ টাকা। জাতীয় রাজস্ব ভবন নির্মাণ (প্রথম সংশোধিত)” প্রকল্প। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৯৫ কোটি ১৮ লাখ টাকা।

সম্পাদনা: আরএ/আরবি/জেডএইচ

মন্তব্য