আমাদের মেইল করুন abasonbarta2016@gmail.com
কারাগারের নতুন ভবনে খালেদা জিয়া, সঙ্গে ফাতেমাও

দন্ডপ্রাপ্ত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের কেন্দ্রীয় কারাগারের নতুন ভবনে রাখা হয়েছে। জেলকোড অনুযায়ী সেখানে তাঁকে সব ধরণের সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। এদিকে, নতুন ভবনে খালেদা জিয়ার সেবায় গৃহপরিচারিকা ফাতেমা বেগমকে তাঁর সঙ্গে থাকতে দেওয়া হয়েছে বলে কারা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কেন্দ্রীয় কারাগারে যতগুলো সুযোগ-সুবিধা দেওয়া যায় তার সবই খালেদা জিয়াকে দেয়া হচ্ছে। এখানে অনিরাপদ, ঝুঁকিপূর্ণ কিংবা অস্বাস্থ্যকর কিছুই নেই।

আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, খালেদা জিয়া এখন যে কারাগারে আছেন, সেখান থেকে তাঁকে স্থানান্তরের আপাতত কোনো পরিকল্পনা নেই।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জ্যেষ্ঠ কারা তত্ত্বাবধায়ক মো. জাহাঙ্গীর কবির জানিয়েছেন, এখন তাঁর সেবায় গৃহকর্মী ফাতেমাকেও বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে থাকতে দেওয়া হচ্ছে। ৩৫ বছর বয়সী ফাতেমা দুই দশক ধরে খালেদার গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করছেন।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অর্ফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদাকে নাজিমউদ্দিন রোডে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের পুরনো ভবনে নেওয়া হয়। পুরনো কারাগারের মূল ভবনের নিচতলার একটি কক্ষে খালেদা জিয়াকে রাখা হয়। ওই কক্ষ এক সময় একজন কারা কর্মকর্তা ব্যবহার করতেন। দুদিন পর আইনজীবীরা কারাগারে গিয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করে আসার পর ওই পরিবেশ নিয়ে অভিযোগ করেন বিএনপি নেতারা।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন, কোস্ট গার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার এডমিরাল আওরঙ্গজেব চৌধুরী ছাড়াও আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে ৬ষ্ঠ বারের মত কোস্টগার্ড উন্নয়ন ও অপারেশনে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ২২ জন কর্মকর্তা, ১৬ জন নাবিক ও ২ জন অসামরিক কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ মোট ৪০ জনকে কোস্টগার্ড পদক, প্রেসিডেন্ট কোস্ট গার্ড পদক, কোস্ট গার্ড (সেবা) পদক ও প্রেসিডেন্ট কোস্ট গার্ড (সেবা) পদক প্রদান করা হয়। বর্তমানে এই বাহিনীর সদস্য সংখ্যা ২ হাজার ৮৬৫ জন।

সম্পাদনা: আরএ/আরবি/এনএম

মন্তব্য