আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
এনবিআর আপনার ব্যয়বিবরণীর দিকে নজর দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে

আপনি বেশি আয় করেন। স্বাভাবিকভাবেই আপনি বেশি খরচ করবেন। তাই আপনার সার্বিক জীবনযাত্রার ব্যয়ও অনেক বেশি হবে। এই জীবনযাত্রার ব্যয়বিবরণী দেখেই জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আপনার আয়, সামাজিক মর্যাদা এসব সম্পর্কে ধারণা পায়। এ জন্য প্রতিবছর আয়কর বিবরণী জমার সময় জীবনযাত্রার ব্যয়বিবরণীও দিতে হয়। একজন করদাতার আয় ও খরচের চিত্র পাওয়া যায় এখান থেকেই। হয়তো করদাতা ছোট চাকরি করেন, বেতন-ভাতাও কম। কিন্তু বিলাসবহুল জীবনযাপন করেন। ব্যয়বিবরণীতে এসব ধরা পড়ে। গত দুই অর্থবছর ধরে এনবিআর কর ফাঁকিবাজ ধরার কৌশল বদলে ফেলেছে। আগে সব করদাতার সম্পদ বিবরণী জমা দেওয়া বাধ্যতামূলক ছিল। গত মৌসুম থেকে ২০ লাখ টাকার কম সম্পদ থাকলে সম্পদ বিবরণী জমা বাধ্যতামূলক নয়। এবার তা বাড়িয়ে ২৫ লাখ টাকা করা হয়েছে। এনবিআর এখন সম্পদের চেয়ে ব্যয়বিবরণীর দিকে বেশি নজর দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে।

বার্ষিক খরচের বিবরণীতে তথ্য দিতে এক পৃষ্ঠার একটি নির্দিষ্ট ফরম আছে। ওই ফরমের প্রথমেই করদাতার খাদ্য, বস্ত্র ও অন্য নিত্যপণ্যে ১২ মাসে খরচ কত হলো, সেটা লিখতে হবে।

বাড়ি-গাড়ি

আপনি যদি ভাড়া থাকেন, তবে এক বছরে বাসাভাড়া কত দিলেন, তা-ও উল্লেখ করতে হবে। কোনো করদাতা যদি কম বেতনের চাকরি করেন; কিন্তু গুলশান, বনানী, ধানমন্ডির মতো অভিজাত এলাকায় লাখ টাকার ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকেন। তাহলে ওই করদাতার আয় নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই পারে।

একইভাবে করদাতার গাড়ি থাকলে গাড়ির চালকের বেতন, জ্বালানি ও রক্ষণাবেক্ষণসহ যাবতীয় খরচের হিসাব দিতে হবে। অনেক বড় ব্যবসায়ী নিজের সম্পদ ও ব্যয়বিবরণীতে গাড়ি দেখান না। কর এড়ানোর কৌশল হিসেবে বড় বড় ব্যবসায়ী নিজেদের প্রতিষ্ঠানের নামে গাড়ি দেখান। এমনকি চালকের বেতন ও রক্ষণাবেক্ষণ খরচও প্রতিষ্ঠানের নামে দেখান।

গৃহস্থালি

গৃহস্থালি ও সেবা বাবদ খরচও আপনাকে বার্ষিক ব্যয়বিবরণীতে জমা দিতে হবে। বিশেষ করে বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানি, পয়োনিষ্কাশন, দৈনন্দিন বর্জ্য অপসারণ, টেলিফোন বিল এই খাতে দেখাতে হয়। এমনকি ইন্টারনেট ও স্যাটেলাইট চ্যানেল দেখার জন্য মাসিক বিলও এই খাতে হয়। এ ছাড়া গৃহস্থালির কাজ করার জন্য গৃহকর্মীকে মাস শেষে যে টাকা দেওয়া হয়, তা-ও এর আওতাভুক্ত।

শিক্ষা

সন্তানদের শিক্ষাব্যয়ের তথ্যও ব্যয়বিবরণীতে দিতে হয়। ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল কিংবা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সন্তানকে পড়ালে এর টিউশন ফি বাবদ খরচও দেখাতে হবে। এতে কোনো করদাতার বৈধ আয়ের সঙ্গে সন্তানের পড়াশোনার ব্যয়ের মধ্যে অসংগতি থাকলে তা উঠে আসবে।

বিনোদন

আপনি যদি নিয়মিত দেশের অভ্যন্তরে কিংবা বিদেশে নিয়মিত যাতায়াত করেন কিংবা দেশের বাইরে ঘুরতে যান, সেই খরচও দেখাতে হবে। উৎসব, পার্টি কিংবা অন্য কোনো আয়োজন করলে এর খরচ বিবরণী দিতে হবে। আবার কাউকে মানবিক সাহায্য করলেন কিংবা স্কুল-কলেজ ও অন্য দাতব্য প্রতিষ্ঠানে অনুদানের খরচও এই খাতের অন্তর্ভুক্ত।

কর

করদাতার দেওয়া করও একধরনের খরচ। কোনো করদাতা যদি উৎসে কর দেন, তা-ও খরচ বিবরণীতে দেখাতে হবে। যেমন স্থায়ী আমানতের সুদের বিপরীতে কাটা উৎসে কর। বছর শেষে যে আয়কর দেন, সেটাও খরচ। বার্ষিক মোট ব্যয় ও কর মিলিয়েই খরচ বিবরণী তৈরি করতে হয়।
সুত্র-ট্যাক্স নিউজ

মন্তব্য