আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই এমন ভবঘুরেদের জন্য হচ্ছে আবাসন

মানসিক ভারসাম্যহীন নয় অথচ ভবঘুরে। নেই মাথার উপর ছাদ। রাস্তাঘাটেই দিন রাত কাটে। এমন ভবঘুরেদের আশ্রয় ও দেখভালের জন্য এবার উদ্যোগ নিল বালুরঘাট পৌরসভা। শহরের খাদিমপুর লোকনাথ মন্দির সংলগ্ন এলাকায় তৈরি হচ্ছে ভবঘুরেদের জন্য আবাসন। মোট ৫০ জন ভবঘুরে থাকতে পারবে ওখানে বলে জানা গিয়েছে।

কেন্দ্র সরকারের জাতীয় নগর জীবিকা মিশন বা এনইউএলএম প্রকল্পের অধীনে ও বালুরঘাট পৌরসভার উদ্যোগে শহরের লোকনাথ মন্দির এলাকায় তৈরি হচ্ছে ভবঘুরেদের জন্য স্থায়ী অবাসন। পৌর এলাকায় রয়েছে এমন ভবঘুরেদের দেওয়া হবে আবাসন গুলি। প্রায় ১ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যায়ে তৈরি হচ্ছে আবাসনটি। আগামী মাস দুয়েকের মধ্যেই কাজ শেষ হবে আবাসনের বলে পৌরসভার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। এদিকে বালুরঘাট শহরের এমন ভবঘুরেদের চিহ্নিত করণ প্রক্রিয়া শুরু করেছে পৌরসভা। এরজন্য কলকাতা থেকে কয়েকজনের প্রতিনিধি দল এসে পৌঁছেছে বালুরঘাটে।

শনিবার রাত থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় ভবঘুরেদের চিহ্নিত করার পাশাপাশি তাদের তথ্য সংগ্রহ করছেন তারা। শুধু মাত্র আবাসন দেওয়া নয় পাশাপাশি তাদের সব রকম দায়িত্ব নেবে পৌরসভা। এদিকে বালুরঘাট পৌরসভার পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত ৩৫ জন ভবঘুরেকে চিহ্নিত করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। আর কিছু দিনের মধ্যেই ঘর পাবেন ভবঘুরেরা।

এবিষয়ে বালুরঘাট পৌরসভার চেয়ারম্যান রাজেন শীল জানান, লোকনাথ মন্দির এলাকায় ভবঘুরেদের জন্য তৈরি করা হচ্ছে আবাসন। সেখানে ৫০ জন থাকতে পারবে। থাকার পাশাপাশি তাদের খাওয়া দাওয়ারও ব্যবস্থা করা হবে বলে রাজেনবাবু জানিয়েছেন।

প্রকল্প আধিকারিক সুমন কুমার দাস জানান, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী তারা শহর এলাকায় ঘর নেই এমন ভবঘুরেদের তথ্য সংগ্রহ করছেন। রাত দশটার পর পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ভবঘুরেদের তথ্য সংগ্রহ করছেন তারা। এখন পর্যন্ত ৩০-৩৫ জনের তথ্য পাওয়া গেছে। সবাই ঘর পাবে কি না সেটা পৌরসভা দেখবে। একজন বা দু’জনের পরিবার হলেও আবাসনে থাকতে পারবে বলে সুমনবাবু জানিয়েছেন।

মন্তব্য