আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
‘ফ্ল্যাট ক্রয়ে অর্থের উৎসের অনুসন্ধান বন্ধ করতে হবে’

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত সবার জন্য আবাসন সুবিধা নিশ্চিত করতে ফ্ল্যাট ক্রয়ে আয়ের উৎসের সন্ধান বন্ধের দাবি জানিয়েছেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। সোমবার সংসদের অধিবেশনে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের উপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ দাবি তোলেন।

তিনি বলেন, ফ্ল্যাট ক্রয়ে কিছু বাধার সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের এখানে ফ্ল্যাট ক্রয়ের ক্ষেত্রে অর্থের উৎসের সন্ধান করা হয়। এতে ফ্ল্যাট ক্রয় ব্যাপকভাবে কমে যাচ্ছে। অথচ এই অর্থ বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে। বিদেশে গিয়ে তারা ফ্ল্যাট কিনছেন। এই অর্থপাচার বন্ধ করতে হলে একটা উপায় বের করেত হবে। তাই প্রস্তাব করছি যে টাকা দিয়ে ফ্ল্যাট কিনবে সেই টাকার ১০ শতাংশ ট্যাক্স দিয়ে সেটা যেন সাদা করার সুযোগ থাকে। ফ্ল্যাট ক্রয়ের অর্থের উৎসের অনুসন্ধান বন্ধ করতে হবে। আর ফ্ল্যাট রেজিস্ট্রেশন ফি কমাতে হবে। বর্তমানে ফ্ল্যাট ক্রয়ে সব মিলেয়ে ১৬ শতাংশ ট্যাক্স আদায় করা হয়ে, এটাকে ৭ শতাংশে নিয়ে আসার দাবি করছি।

দেশে কর দাতার সংখ্যা বাড়ানোর প্রস্তাব করে মন্ত্রী বলেন, কমপক্ষে দুই কোটি মানুষকে করের আওতায় আনতে হবে। এই দুই কোটি লোক যদি ২০ হাজার করে টাকা দেয় তাহলে ৪০ হাজার কোটি টাকা আসতে পারে। তিনি ভ্যাট আদায়ে ডিজিটাল ব্যবস্থা করার দাবি জানান।

তিনি আরো বলেন, জনগণ ভ্যাট প্রদান করলেও পুরোটা সরকারি কোষাগারে যায় না। এ কারণে প্রতি বছরই রাজস্ব আদায় ঘাটতি থেকে যাচ্ছে। প্রযুক্তিকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারলে ভ্যাট আদায়ে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। প্রতিটি দোকান এবং সেবা কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক্স ক্যাশ রেজিস্ট্রার চালু করা হোক। এই ক্যাশ রেজিস্ট্রারের সাথে এনবিআরকে সম্পর্ক স্থাপন করতে পারলে ট্যাক্স সরাসরি সরকারি সার্ভার জমা হবে। এতে ভ্যাট আদায় বাড়বে এবং বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। এতে ভ্যাটের হার কমিয়ে সাড়ে ৭ শতাংশ করলেও বর্তমানের তুলনায় চারগুণ বেশি ভ্যাট আদায় হবে।

মন্ত্রী জানান, সবার জন্য আবাসন নিশ্চিত করতে রাজউক উত্তরায় ৬ হাজার ৬৩৬টি অ্যাপার্টমেন্ট নির্মাণ করেছে। যা আগামী দুই এক মাসেসর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে উদ্বোধন করা হবে। এছাড়া আরও ৮ হাজার ৪০০ ফ্ল্যাট নির্মাণ করতে যাচ্ছি। ঝিলমিলে ১১ হাজার ৪০০ ফ্ল্যাট নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পূর্বাচলে ৭০ হাজার থেকে ৮০ হাজার অ্যাপার্টমেন্ট নির্মাণে শিগগিরই দরপত্র আহ্বান করা হবে।

এমপিদের দাবির মুখে সব এমপিকেই প্লট দেয়া হয়েছে বলে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ৩৫০জন এমপিকেই প্লট দেয়া হয়েছে। তিন কাঠা করে হলেও সবাই পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী এটি এমপিদের উপহার হিসেবে দিয়েছেন।

মন্তব্য