আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
রিহ্যাব ফেয়ার সরগরম: ক্রেতার আগ্রহ রেডি ফ্ল্যাটে

দর্শনার্থীদের উপস্থিতিতে রিহ্যাব ফেয়ার সরগরম হয়ে উঠেছে। বুধবার উদ্বোধনী দিন থেকেই মেলা জমজমাট। রিহ্যাব ফেয়ার একই ছাতার নিচে প্লট, ফ্ল্যাট এবং ঋণ সুবিধার এক অপূর্ব সুযোগ তৈরি করেছে। আগ্রহী ক্রেতাদের এখানে পছন্দের প্লট বা ফ্ল্যাট বেছে নিতে পারছেন।

ঢাকা শহরের অভিজাত এলাকা থেকে শুরু করে পরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠা বিভিন্ন এলাকায় পর্যাপ্ত রেডি ফ্ল্যাট রয়েছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের।

শুক্রবার রিহ্যাব ফেয়ার ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতাদের বেশিরভাগই রেডি ফ্ল্যাট খুঁজছেন। এবারের মেলায় রেডি ফ্ল্যাটের জোগানও ভালো। মেলায় অংশ নেয়া ১০৮টি আবাসন প্রতিষ্ঠানের ২ হাজার রেডি ফ্ল্যাট প্রস্তুত আছে। দর্শনার্থী বা ক্রেতারা সেসব ফ্ল্যাটের ব্যাপারে খোঁজখবর করছেন। রিহ্যাবের ভাইস-প্রেসিডেন্ট কামাল মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নের স্বার্থে সব খাতকে শক্তিশালী করার বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন।

সে কারণে আবাসন খাত ধীরে ধীরে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। এবারের রিহ্যাব ফেয়ারের আবাসন খাতকে ঘুরে দাঁড়াতে বড় ভূমিকা পালন করবে। এবারের মেলায় ১০৮টি আবাসন প্রতিষ্ঠানের ২ হাজার রেডি ফ্ল্যাট রয়েছে।

বৃহস্পতিবার রিহ্যাব ফেয়ারে রূপায়ণ হাউজিং এস্টেট লিমিটেডের স্টলে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বেইলি রোড এবং উত্তরাতে তাদের ২৭০টি রেডি ফ্ল্যাট রয়েছে। এর মধ্যে বেইলি রোডের ১৩০টি ফ্ল্যাট রয়েছে। এসব ফ্ল্যাটের আয়তন ২ হাজার ২৭১ বর্গফুট থেকে ৩ হাজার ৪১ বর্গফুট পর্যন্ত। প্রতি বর্গফুট ফ্ল্যাটের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। আর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় তাদের রয়েছে ১৪০টি রেডি ফ্ল্যাট। ১ হাজার ৪৬০ বর্গফুট থেকে ৩ হাজার ২০০ বর্গফুট আয়তনের ফ্ল্যাট রয়েছে। এসব ফ্ল্যাটের প্রতিবর্গফুট ফ্ল্যাটের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১২ হাজার ৮০০ বর্গফুট। এ প্রসঙ্গে রূপায়ন হাউজিং এস্টেট লিমিটেডের ডেপুটি ম্যানেজার মাইনুল ইসলাম বলেন, রিহ্যাব ফেয়ারে ক্রেতার উপস্থিতি খুব ভালো। আমাদের স্টলে রেডি ফ্ল্যাট থাকায় ক্রেতারা আগ্রহভরে অনেক সময় থাকছেন, আমাদের বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শনে যাওয়ার ব্যাপারেও আগ্রহ প্রকাশ করছেন। আমরা আশা করছি, এবারের মেলা থেকে কিছু ফ্ল্যাট বিক্রি করতে সক্ষম হব।

জাপান টাগুচির স্টলের দায়িত্বপ্রাপ্তরা জানান, তাদের বসুন্ধরা ও মানিকদীতে ১৪টা রেডি ফ্ল্যাট রয়েছে। ৯৭০ বর্গফুট ১ হাজার ১৪০ বর্গফুট এবং ২ হাজার বর্গফুটের ফ্ল্যাট। বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ৪টি ফ্ল্যাট ২ হাজার বর্গফুটের। বর্গফুট ৮ হাজার ৫০০ টাকা দরে বিক্রি করছে। আর মানিকদীর ফ্ল্যাটগুলো ৯৭০-১ হাজার ১৪০ বর্গফুটের। এসব ফ্ল্যাট বর্গফুট ৫ হাজার টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। কৃষিবিদ গ্রুপের রেডি ফ্ল্যাট রয়েছে ৬-৭টি। কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া ও আদাবরে এসব ফ্ল্যাট। ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৪০০ বর্গফুটের এসব ফ্ল্যাট। ৪ হাজার ৫০০ টাকা থেকে ৫ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে এসব ফ্ল্যাট। কৃষিবিদ গ্রুপের সহকারী ব্যবস্থাপক এনামুল হক বলেন, এবারের রিহ্যাব ফেয়ারে দর্শনার্থীর উপস্থিতি খুব ভালো। ক্রেতারা রেডি ফ্ল্যাট খুঁজছেন, বেশির ভাগ স্টলে তারা রেডি ফ্ল্যাট পাচ্ছেন। এ কারণে তারা স্টল ঘুরে ঘুরে সাধ ও সাধ্যের সমন্বয় ঘটানোর চেষ্টা করছেন। আশা করছি, এবারের মেলার দর্শনার্থীদের মধ্য থেকে আমরা ক্রেতা আকৃষ্ট করতে সক্ষম হব।

রিহ্যাব সংশ্লিষ্টরা বলেন, নীতি সহায়তার অভাবে দীর্ঘদিন থেকে আবাসন খাতে মন্দাবস্থা বিরাজ করছে। যদিও সরকারের কিছু ইতিবাচক উদ্যোগে সেই মন্দাবস্থা কাটতে শুরু করেছে। আরও কিছু নীতি সহায়তা দরকার। সেসব নীতি সহায়তা করা হলে সাধারণ মানুষের আবাসন সুনিশ্চিত করা সম্ভব হবে। রিহ্যাব ফেয়ার ৫ ফেব্রুয়ারি বুধবার থেকে শুরু হয়েছে। চলবে ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এবারের ফেয়ারে মোট ২০২টি স্টল থাকছে। এ বছর ২০টি বিল্ডিং ম্যাটেরিয়ালস ও ১৪ অর্থলগ্নিকারী প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করেছে। প্রথম দিন ক্রেতা-দর্শনার্থীদের জন্য দুপুর ২টায় মেলার উদ্বোধন করেন। বৃহস্পতিবার থেকে রোববার পর্যন্ত সকাল ১০ থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ক্রেতা দর্শনার্থীরা প্রবেশ করতে পারবেন। মেলায় দুই ধরনের টিকিট রয়েছে। একটি সিঙ্গেল এন্ট্রি অপরটি মাল্টিপল এন্ট্রি। সিঙ্গেল টিকিটের প্রবেশ মূল্য ৫০ টাকা। আর মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিটের প্রবেশ মূল্য ১০০ টাকা।

মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিট দিয়ে একজন দর্শনার্থী মেলার সময় ৫ বার প্রবেশ করতে পারবেন। এন্ট্রি টিকিটের প্রাপ্ত সম্পন্ন অর্থ দুস্থদের সাহায্যার্থে ব্যয় করবে বলে জানিয়েছে রিহ্যাব কর্তৃপক্ষ। এবারের ফেয়ারেরও এন্ট্রি টিকিটের রাফ্রেল ড্রতে থাকছে আকর্ষণীয় মূল্যবান পুরস্কার। এ বছর মেলার শেষ দিন ১০ ফেব্রুয়ারি রাত ৯টায় রাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হবে। এ বছর রাফেল ড্রর ১ম পুরস্কার- ১টি প্রাইভেট কার, ২য় পুরস্কার একটি মোটরসাইকেল, ৩য় পুরস্কার ১টি ফ্রিজ, ৪র্থ পুরস্কার-১টি ৪৩ ইঞ্চি এলইডি টেলিভিশন, ৫ম পুরস্কার-১টি ওয়াশিং মেশিন এবং ৬ষ্ঠ পুরস্কার- ডিপ ফ্রিজ (১টি), ৭ম পুরস্কার- মোবাইল ফোন (১টি), ৮ম পুরস্কার- মোবাইল ফোন (১টি), ৯ম পুরস্কার- মাইক্রো ওভেন (১টি) এবং ১০ম পুরস্কার- এয়ার কুলার (১টি)। এছাড়া মেলার প্রতিদিন ইউ-এস বাংলা গ্রুপের সৌজন্যে প্রথম পুরস্কার ২ রাত ৩ দিনের হোটেল প্যাকেজসহ কাপল এয়ার টিকিটে সিঙ্গাপুর ভ্রমণ। দ্বিতীয় পুরস্কার ঢাকা-মালয়েশিয়া-ঢাকা ও তৃতীয় পুরস্কার হিসেবে থাকছে ঢাকা-ব্যাংকক-ঢাকা’র কাপল এয়ার টিকিট। www.rehabfair2019.com এই ওয়েবসাইটে লটারি বিজয়ীদের নাম প্রকাশ করা হবে। ২০০১ সালে রিহ্যাবের তত্ত্বাবধানে ঢাকায় আবাসন মেলা শুরু হয়, এখন ঢাকার পাশাপাশি চট্টগ্রাম এবং প্রবাসেও আবাসন মেলার আয়োজন করছে রিহ্যাব।

ইউএস-বাংলার প্লট বুকিং দিলেই তিন দেশ ভ্রমণের সুযোগ : রিহ্যাব ফেয়ারকে আকর্ষণীয় করার লক্ষে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স প্রতিদিন মেলায় প্রবেশ কুপনের ওপর ‘র‌্যাফেল ড্র’-এর পুরস্কার হিসেবে দিচ্ছে দু’জনের জন্য দুই রাত তিন দিনের সব সুবিধাসহ সিঙ্গাপুর ভ্রমণ। এছাড়া থাকছে দু’জনের জন্য ঢাকা-কুয়ালালামপুর-ঢাকা ও ঢাকা-ব্যাংকক-ঢাকা এয়ার টিকিট। রিহ্যাব ফেয়ারে ইউএস-বাংলা এসেটস্ কো-স্পন্সর।

৬ ফেব্রুয়ারি থেকে পাঁচ দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে রিহ্যাব ফেয়ার অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ মেলা উপলক্ষে ইউএস-বাংলা এসেটসের পূর্বাচল আমেরিকান সিটি ও হলিডে হোমস্ কুয়াকাটায় প্লট বুকিং দিলেই একসঙ্গে তিন দেশ- সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডে ভ্রমণের সুযোগ থাকছে। বিভিন্ন প্রকল্পে এককালীন প্লট ক্রয়ের জন্য থাকছে ২৫% পর্যন্ত মূল্য হ্রাস। রিহ্যাব ফেয়ারে ইউএস-বাংলার স্টল নং ২২। যুগান্তর

মন্তব্য