আমাদের মেইল করুন abasonbarta2016@gmail.com
কর ও ভ্যাটে ছাড়ের সম্ভাবনা : আবাসন খাতে সেকেন্ডারি বাজার গড়ে তোলার উদ্যোগ

সীমিত আয়ের মানুষের জন্য নিজস্ব আবাসন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে এ খাতে সেকেন্ডারি বাজার সৃষ্টির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ফ্ল্যাট ও প্লটে দ্বিতীয়বার বিকিকিনিতে নিবন্ধন ফি, স্ট্যাম্প ডিউটি এবং কর ও ভ্যাটে ছাড় দেয়ার কথা ভাবছে সরকার। আগামী বাজেটে এ-সংক্রান্ত বিশেষ প্রণোদনা থাকতে পারে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর), গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ও আবাসন ব্যবসায়ীদের সমন্বিত ওয়ার্কিং কমিটি সম্প্রতি এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নিবন্ধন ফি, স্ট্যাম্প ডিউটি এবং কর ও ভ্যাটের অতিরিক্ত ব্যয়ের কারণে কয়েক বছর ধরেই মন্দায় রয়েছে আবাসন খাত। ফ্ল্যাট কেনার ক্ষেত্রে মূল দামের বাইরে ১৭ শতাংশ পর্যন্ত নিবন্ধন ব্যয় হওয়ায় সীমিত আয়ের মানুষ ফ্ল্যাট কিনতে আগ্রহী হচ্ছে না। বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ করে অনিশ্চয়তায় রয়েছে আবাসন খাতের কোম্পানিগুলোও। আবাসন খাতের বিদ্যমান মন্দাবস্থা কাটিয়ে উঠতে আগামী বাজেটে নীতিসহায়তা পেতে সম্প্রতি এনবিআর চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন এ খাতের উদ্যোক্তারা। বৈঠকের পর এনবিআর, গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ও ব্যবসায়ীদের সমন্বয়ে যৌথ ওয়ার্কিং কমিটি গঠন করা হয়। সম্প্রতি ওই কমিটির বৈঠক শেষে নতুন ফ্ল্যাট নিবন্ধনের ক্ষেত্রে ফি কমানোর উদ্যোগের পাশাপাশি সেকেন্ডারি বাজার ব্যবস্থা গড়ে তোলার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এনবিআরের কর্মকর্তারা বলছেন, ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে আবাসন খাতের সমস্যা সমাধানে ছয়টি প্রস্তাব উপস্থাপন করে আবাসন খাতের ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিহ্যাব। সংগঠনের প্রস্তাবের মধ্যে সেকেন্ডারি বাজার তৈরিতে নিবন্ধন ফি ও কর-ভ্যাট কমাতে আগ্রহী এনবিআর। নতুন ফ্ল্যাটের নিবন্ধন ফি কমানোর বিষয়টি ইতিবাচক হিসেবে দেখছে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষ। তবে আবাসন খাতে কালো টাকা প্রশ্ন ছাড়া বিনিয়োগের সুযোগ, সাপ্লায়ার ভ্যাট ও উেস কর সংগ্রহের দায়িত্ব থেকে রিহ্যাবকে অব্যাহতিসহ অন্য প্রস্তাবগুলো যাচাই-বাছাই করে দেখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

যৌথ ওয়ার্কিং কমিটির প্রধান ও এনবিআরের সদস্য মো. রেজাউল হাসান বলেন, বিনিয়োগ বৃদ্ধির মাধ্যমে রাজস্ব আহরণ বাড়াতে চায় সরকার। সেকেন্ডারি বাজার ব্যবস্থা গড়ে উঠলে এ খাতে কর-ভ্যাটের হার কমলেও আদায় বাড়বে। ফলে এ খাতে চলতি অর্থবছর থেকেই ভ্যাট আদায়ে রেয়াত পদ্ধতি অনুসরণ করছে এনবিআর। প্রথমবার নিবন্ধনে যে ফ্ল্যাটে ভ্যাট নেয়া হয় দ্বিতীয়বার বিক্রি হলে তাতে রেয়াত পাওয়া যাবে। উেস কর ও নিবন্ধন ফির বিষয়টি বিবেচনাধীন রয়েছে।

জানা গেছে, আবাসন খাতে প্লট ও ফ্ল্যাট যতবার হাতবদল হয়, ততবারই একই হারে কর, ভ্যাট ও ফি প্রযোজ্য হয়। বর্তমানে একই ফ্ল্যাট দ্বিতীয়বার হাতবদলের সময়ও প্রথমবারের মতো ১৭ শতাংশ পর্যন্ত বিভিন্ন ফি প্রদান করতে হয়। এর পরিবর্তন চেয়ে সেকেন্ডারি বাজার গড়ে তোলার প্রস্তাব দেয় রিহ্যাব। প্রথম পর্যায়ে পাঁচ বছরের মধ্যে দ্বিতীয়বার হাতবদল হলে ফ্ল্যাটে সব মিলিয়ে ৩ দশমিক ৫ শতাংশ হারে ফি নির্ধারণ করার প্রস্তাব করা হয়। এটি হলে সীমিত আয়ের মানুষের পুরনো ফ্ল্যাট ক্রয়ের সুযোগের পাশাপাশি আবাসস্থল পরিবর্তন করতে ইচ্ছুক মানুষের জন্য তা সহজ হবে। এতে নতুন একটি বাজার ব্যবস্থাও গড়ে উঠবে।

রিহ্যাবের সহসভাপতি লিয়াকত আলী ভুঁইয়া বলেন, বিশ্বের অধিকাংশ দেশেই এ ধরনের নিয়ম প্রচলিত রয়েছে। আমাদের দেশে গাড়ির ক্ষেত্রে এ ধরনের সুযোগ রয়েছে। পরিবহন খাতে এ ব্যবসাকে কেন্দ্র করে অনেক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। আবাসন খাতেও আমরা বিকল্প একটি বাজার চাই। এজন্য কর, ভ্যাট ও নিবন্ধন ফিতে বিশেষ সুবিধা দিতে হবে।

আবাসন খাতে সেকেন্ডারি বাজারের বাইরে নতুন ফ্ল্যাট ও প্লটের নিবন্ধন ব্যয় কমানোর বিষয়েও প্রস্তাব দিয়েছে রিহ্যাব। সংগঠনটি বলছে, বর্তমানে ফ্ল্যাট নিবন্ধনে ৪ শতাংশ গেইন ট্যাক্স, ৩ শতাংশ স্ট্যাম্প ফি, ২ শতাংশ নিবন্ধন ফি, ২ শতাংশ স্থানীয় সরকার কর ও ৩ শতাংশ হারে মূল্য সংযোজন কর দিতে হয়। এটি পরিবর্তন করে মোট ৭ শতাংশে নামিয়ে আনা দরকার। এছাড়া এ খাতের জন্য আয়কর হার যৌক্তিক পর্যায়ে নামিয়ে আনতে গুলশান, বনানী, বারিধারা, মতিঝিল এলাকায় আবাসিকের জন্য প্রতি বর্গমিটারের আয়কর ৫০০ টাকা ও অনাবাসিকের জন্য প্রতি বর্গমিটারের আয়কর ১ হাজার টাকা; ধানমন্ডি, লালমাটিয়া, উত্তরা, ডিওএইচএস, কারওয়ান বাজার, চট্টগ্রামের খুলশী, পাঁচলাইশ, আগ্রাবাদ ও নাছিরাবাদ এলাকার আবাসিকের জন্য প্রতি বর্গমিটারের আয়কর ৪৫০ টাকা ও অনাবাসিকের জন্য প্রতি বর্গমিটারে ৮০০ টাকা আয়কর নির্ধারণের প্রস্তাব করেছে রিহ্যাব। একই সঙ্গে তা চূড়ান্ত দায়মুক্তি হিসেবে বিবেচনা করার সুপারিশ করেছে সংগঠনটি। পাশাপাশি বৈধভাবে উপার্জিত অপ্রদর্শিত অর্থ আবাসন খাতে প্রশ্ন ছাড়া বিনিয়োগের সুযোগ চেয়েছে সংগঠনটি। তবে এসব বিষয়ে এনবিআর এখনো কোনো উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানা যায়নি। বণিক বার্তা

শেয়ার করুন