আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
ঘোষণা
আবাসন সম্পর্কিত যেকোনো নিউজ পাঠাতে পারেন আমাদের এই মেইলে- abasonbarta2016@gmail.com
রাজউকের নকশাকারক হামিদ এখন কোটিপতি!

রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ রাজউকের উত্তরা জোনের নকশাকারক হামিদ। ১৯৯৮ সালে চাকরি শুরু করেন মাস্টাররোলে। কয়েক বছর না যেতেই স্থায়ী হয় চাকরি। চাকরিতে স্থায়ী হওয়ার পর অনিয়ম আর দুর্নীতিতে হয়ে ওঠেন বেপরোয়া। মোটা অঙ্কের টাকা ছাড়া দেন না নকশা অনুমোদনের ছাড়পত্র। এতে রাতারাতি হয়ে ওঠেন কয়েক কোটি টাকার মালিক।

তার এ বেপরোয়া কাণ্ডে ক্ষুব্ধ ভুক্তভোগীরা। ভুক্তভোগী ও একাধিক সূত্রে জানা যায়, জামালপুর জেলার ইসলামপুরে উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নের মরহুম হাসানুজ্জামানের ছেলে হামিদ ১৯৯৮ সালে মাস্টাররোলে চাকরি শুরু করেন। নকশাকারক হিসেবে পান বেশ পরিচিতি। এরপর থেকেই হয়ে ওঠেন দুর্নীতিতে বেপরোয়া।

ছাড়পত্র অনুমোদনের বিনিময়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেন মোটা অঙ্কের টাকা। টাকা নিলে দেন না ছাড়পত্র। রাতারাতি আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয় হামিদের অবস্থা। গড়ে তোলেন সম্পদের পাহাড়। তবে বিচক্ষণ হামিদ জ্ঞাত-আয়বহিভর্‚ত সম্পদের কারণে ফেঁসে না যাওয়ার জন্য সম্পদগুলো করেন স্ত্রী ও আত্মীয়স্বজনের নামে।

মানবকণ্ঠের অনুসন্ধানে জানা যায়, হামিদ বর্তমানে বসবাস করেছে রাজধানীর দক্ষিণখানের টিআইসি কলোনিতে। সেখানে পাঁচতলা ভবনের একটি ফ্লাট ক্রয় করেন স্ত্রীর নামে। রয়েছে দুটি বিশাল দামের হায়েস গাড়ি। দক্ষিণখান এলাকায় নামে-বেনামে রয়েছে আরো ১০-১২ কাঠা জমি।

এ ছাড়া শ্বশুরবাড়ি গাইবান্ধা ও নিজবাড়ি জামালপুরে রয়েছে নামে-বেনামে কয়েক কোটি টাকার সম্পত্তি। এ প্রসঙ্গে জনতে চাইলে হামিদ বলেন, ঢাকা-শহরে আমার কবর দেয়ার মতো কোনো জমি নাই। ছাড়পত্র দেয়ার নামে টাকা নেয়ার কথাও অস্বীকার করেন তিনি।

হামিদ বলেন, আমার স্ত্রীর নামেও কোনো সম্পত্তি নাই। তবে একটি গাড়ি আছে সেটা লোন নিয়ে কিনেছি।

মন্তব্য