আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
অস্থির রডের বাজার, দাম বেড়েছে ১৪ শতাংশ

নির্মাণশিল্পের অন্যতম প্রধান উপাদান রডের বাজার হঠাৎ অস্থির হয়ে উঠেছে। দেশের বাজারে গত দুই মাসে রডের দাম ১০ থেকে ১৪ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। বিএসআরএম, আবুল খায়ের, কেএসআরএমের মতো বড় প্রতিষ্ঠান ও ব্র্যান্ডের ষাট গ্রেডের প্রতি টন রড ৫৫ হাজার থেকে ৫৮ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দুই মাস আগেও এসব রড ৪৯ হাজার থেকে ৫২ হাজার টাকায় বিক্রি হতো। অন্যদিকে, মাঝারি মানের বিশেষ করে সনাতনী (ম্যানুয়েল) কারখানায় উৎপাদিত রডের দাম এখন ৫২ হাজার থেকে ৫৪ হাজার টাকা। বিশ্ববাজারে রডের প্রধান কাঁচামাল স্ক্র্যাপ ও বিলেটের দাম বৃদ্ধি এবং দেশের চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজজট ও গ্যাস-বিদ্যুতের সমস্যার কারণে রডের দাম বেড়েছে বলে জানান ইস্পাত কারখানার মালিকরা। এদিকে, হঠাৎ করে রডের দাম বেড়ে যাওয়ায় নির্মাণ খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে।

রাজধানীর নয়াবাজারে রহিম স্টিলের রডের ডিলার বর্ণিল স্টিল হাউস। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপক ইয়াকুব হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, কোরবানির ঈদের ১৫ দিন আগে প্রতি টন রড ৪৮ হাজার টাকায় বিক্রি করেছি। আর ঈদের পর ৫৬ হাজার টাকা পর্যন্ত দাম উঠেছিলো। এক হাজার কমে এখন ৫৫ হাজার টাকায় বিক্রি করছি।

মিরপুরের তালতলার মেঘনা স্টিল এজেন্সিতে ১০ অক্টোবর গিয়ে দেখা যায়, বড় কোম্পানিগুলোর ষাট গ্রেডের রডের দাম টনপ্রতি ৫৬ হাজার ৮০০ থেকে ৫৭ হাজার ৫০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আগস্টের মাঝামাঝিতে এই রডের দাম ছিল ৫০ হাজার টাকার কাছাকাছি। আর ৪০ গ্রেডের রডের দাম টনপ্রতি ৫০ হাজার থেকে সাড়ে ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আগস্টে এই রডের দাম ছিল ৪৪ হাজার টাকা।

প্রতিষ্ঠানটির বিক্রেতা জানান, কোরবানির ঈদের আগে এক দফা ও পরে আরেক দফায় রডের দাম ৬ হাজার থেকে ৭ হাজার টাকা বেড়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত জুনে বাজেট ঘোষণার পরপরই রডের দাম এক দফা বাড়িয়ে দিয়েছিলেন ব্যবসায়ীরা। কোম্পানিভেদে রডের দাম হয়েছিল টনপ্রতি ৪৮ থেকে ৫২ হাজার টাকা। কারণ, চলতি অর্থবছর থেকে রডের ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ হওয়ার কথা ছিল। শেষ পর্যন্ত নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন পিছিয়ে যাওয়ায় সেটি হয়নি। তবে রডের দাম কমেনি, উল্টো বেড়েছে।

বাংলাদেশ অটো রি-রোলিং অ্যান্ড স্টিল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান মানোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, বাজেটের পর পাইকারি ব্যবসায়ীরা কারসাজি করে রডের দাম বাড়িয়েছিলেন। আমরা মিলমালিকেরা বাড়াইনি। অবশ্য বাড়তি দাম পরে সংশোধন হয়। তবে মাস দুয়েক আগে বিশ্ববাজারে হঠাৎ করেই রডের কাঁচামাল স্ক্র্যাপের দাম টনপ্রতি ৪০-৪৫ ডলার বেড়ে যায়।

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজজটের কারণে প্রতি টনে খরচ বেড়েছে ৩০-৩৫ ডলার। এছাড়া, গত কয়েক মাসে গ্যাস-সংকট চরম আকার ধারণ করেছে। দেড় মাস ধরে বিদ্যুতের লোডশেডিং বেড়ে গেছে। এসব কারণেই রডের দাম বেড়েছে।

অটো রি-রোলিং অ্যান্ড স্টিল মিলস অ্যাসোসিয়েশন জানায়, দেশের ইস্পাত কারখানাগুলো বছরে ৫০-৫৫ লাখ টন রড উৎপাদন করছে। এর মধ্যে সরকারি প্রকল্পে ৪০ শতাংশ এবং শহর ও গ্রামে ৩০ শতাংশ করে ৬০ শতাংশ রড ব্যবহৃত হয়। একটি স্থাপনার কাঠামো দাঁড় করাতে কেবল রডের পেছনে ৪০-৪৫ শতাংশ অর্থ খরচ হয়।

বিএসআরএমের নির্বাহী পরিচালক তপন সেনগুপ্ত ১১ অক্টোবর বিকালে সাংবাদিকদের বলেন, দেশের ভেতরে আগে যেখানে একেকটি ট্রেইলারে ৩০-৩৫ টন পণ্য পরিবহন করা যেত, এখন ২০ টনের বেশি যাচ্ছে না। এই জন্যও রডের দাম বেড়েছে।

রানি রি-রোলিং মিলের চেয়ারম্যান সুমন চৌধুরী বলেন, বিদ্যুতের দাম ইউনিটপ্রতি ৯০ পয়সা বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে। শেষ পর্যন্ত এটি কার্যকর হলে রড উৎপাদনের খরচ প্রতি টনে এক হাজার ২০০ টাকা পর্যন্ত বাড়বে।

মন্তব্য