আমাদের মেইল করুন dhunatnews@gmail.com
বংশালে রাজউকের উন্নয়ন প্রকল্প স্থগিত

রাস্তা, ফুটপাত, খালি জায়গা না থাকা পুরান ঢাকার এলাকাগুলোর বড় সমস্যা। এছাড়া, পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থাও অপ্রতুল। অপরিকল্পিতভাবে গড়ে তোলা ভবনগুলো ভূমিকম্পের ঝুঁকিতে রয়েছে। এ অবস্থায় উন্নত বিশ্বের বিভিন্ন শহরের আদলে সেসব ভবন ভেঙে সেখানে আধুনিক শহর গড়ে তোলার জন্য ‘আরবান রি-ডেভেলপমেন্ট অব ঢাকা’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছিল রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। পাইলট প্রকল্প হিসেবে পুরান ঢাকার বংশাল এলাকাকে বেছে নেয় তারা। কিন্তু এ প্রকল্প বাস্তবায়নে বংশালের বাসিন্দাদের আপত্তির মুখে পড়ে তা স্থগিত করা হয়। ১৪ অক্টোবর, শনিবার নগর ভবনে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভার পর প্রকল্পটি স্থগিত করার কথা জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন।

সাঈদ খোকন বলেন, আপনাদের (স্থানীয় বাসিন্দা) মতামত শুনে আমার উপলব্ধি, আপনারা এই প্রকল্পে আগ্রহী নন। যেহেতু আপনারা আগ্রহী নন, তাই আপনাদের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে আমরা রাজউকের এই প্রকল্প স্থগিত ঘোষণা করছি।

সভায় উপস্থিত স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, রাজউকের এ প্রকল্পে তাদের আস্থা নেই। এছাড়া, এটি বাস্তবায়ন হবে কত বছরে তা নিয়েও নিশ্চিত নন এলাকাবাসী। এ কারণে তাঁরা চান না সেখানে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হোক। এ এলাকাটি পুরান ঢাকার অন্য এলাকার চেয়ে ভালো বলে দাবি করেন তাঁরা।

রাজউকের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান, ডিএসসিসি ও রাজউকের কর্মকর্তা এবং বংশাল এলাকার নাগরিক কমিটির নেতারা সভায় উপস্থিত ছিলেন। মতবিনিময় সভার শুরুতে রাজউকের উপ নগর পরিকল্পনাবিদ আশরাফুল ইসলাম প্রকল্পের নানাদিক তুলে ধরেন।

প্রকল্প পরিকল্পনায় বলা হয়, এ প্রকল্পের আওতায় একটি নির্দিষ্ট এলাকার জমি অধিগ্রহণ করে আধুনিক ভবন গড়ে তোলা হবে। আগের ছোট ছোট ভবনের বাসিন্দাদের বহুতল ভবনে স্থানান্তর করা হবে। আগের জমিতেই খেলার মাঠ, পার্ক, রাস্তা, স্কুল, ব্যবসা কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে। অধিগ্রহণ করা ভবনের মালিকরাই জমির মালিক থাকবে। রাজউক থাকবে অংশীদার হিসেবে। অধিগ্রহণ করা জমির আনুপাতিক হারে বহুতল ভবন এবং ব্যবসা কেন্দ্রের বরাদ্দ দেওয়া হবে। কেস স্টাডি হিসেবে বংশাল এলাকার ২ দশমিক ২ একর জমিকে চিহ্নিত করে রাউজক। বর্তমানে এসব জমিতে ৭৭টি স্থাপনায় ৩১৬ ইউনিট পরিবার বসবাস করছে। নতুন এ জমিতেই প্রায় ৭০০ এর বেশি পরিবারকে স্থান দেওয়া যাবে। সঙ্গে বাড়তি নাগরিক সুবিধার জন্য বাড়তি স্থাপনা তৈরি করা যাবে।

সম্পাদনা: এবি/আরএ/এআরবি।

মন্তব্য