আমাদের মেইল করুন abasonbarta2016@gmail.com
ছুটির দিনে আবাসন মেলায় বাড়ছে দর্শনার্থী সমাগম

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) থেকে শুরু হয়েছে রিহ্যাব আয়োজিত শীতকালীন আবাসন মেলা। মেলার শুরুর দিনে তেমন ক্রেতা-দর্শনার্থীর আগমন না হলেও দ্বিতীয় দিনেই জমে উঠেছে মেলা। সকাল থেকেই আসছেন ক্রেতা-দর্শনার্থী।

ক্রেতার আগমনে স্বস্তি প্রকাশ করেছেন আবাসন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, এবার ক্রেতাদের ফ্ল্যাট ও প্লট কেনার সুবর্ণ সুযোগ থাকছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, আজ শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় মেলা প্রাঙ্গণ উন্মুক্ত হওয়ার আগ থেকেই দর্শনার্থীদের আগমন ছিল চোখে পড়ার মতো। সকাল ১০টায় সর্বসাধারণের জন্য মেলা উন্মুক্ত করে দেওয়া হলে সবাই প্রবেশ করেন মেলার বিভিন্ন স্টলের সামনে। তারা স্বপ্নের আবাসন নিয়ে নানান পরামর্শ নেন। একই সঙ্গে মেলায় আসা আবাসন কোম্পানিগুলোর বিভিন্ন অফার এবং ছাড় নিয়েও কথা বলেন ক্রেতা-দর্শনার্থীরা।

jagonews24

লালবাগ থেকে আগত মুরশেদা খানম জাগোনিউজকে বলেন, উত্তরায় আমার পাঁচ কাঠার জমি আছে। এখন কোম্পানিগুলোর সঙ্গে পরামর্শ করবো, সেখানে কীভাবে ভবন করা হয়। নিজে যদি বিল্ডং করতে না পারি, তাহলে ভালো কোনো আবাসন কোম্পানিকে ভবন নির্মাণের জন্য দিয়ে দেবো।

মোহাম্মদপুরের বাসিন্দা শামীম হায়দার বলেন, রাজধানীতে স্বপ্নের আবাসনের চাহিদা সবারই থাকে। আমি এসেছি, এখানে মূলত মোহাম্মদপুর এলাকার কোনো অ্যাপার্টমেন্ট বা ফ্ল্যাটের খোঁজে। যদি ভালো মান ও সাধ্যের মধ্যে পেলে আজই বুকিং দেবো।

আবাসন ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিহ্যাব সহ-সভাপতি (প্রথম) কামাল মাহমুদ জাগোনিউজকে বলেন, মানুষের অন্যতম মৌলিক চাহিদা বাসস্থান। বাসস্থানের সমস্যা সমাধানে কাজ করে যাচ্ছে রিহ্যাব। আমরা সব মানুষের আবাসন সুবিধা নিশ্চিত করতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘ড্যাপ বাস্তবায়ন হলে ঠিক কী হবে হবে, তা জানি না। এ নিয়ে সবার মাঝেই আতঙ্ক আছে। এজন্য সবাই (ক্রেতারা) এবারের মেলাকে প্রাধান্য দিচ্ছেন। এবার সাধ্যের মধ্যে ফ্ল্যাট দিতে পারবে ব্যবসায়ীরা। পরবর্তীতে হয়তো এ সুযোগ থাকবে কি না, বলা মুশকিল। একদিকে রড-সিমেন্টের দাম বাড়ছে, অন্যদিকে ড্যাপ নিয়ে অনিশ্চয়তা সব মিলিয়ে ক্রেতার আগমন খুবই সন্তোষজনক।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিতব্য মেলায় থাকছে ২২০টি স্টল। প্রায় ১৫০টি আবাসন প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে। মেলা চলবে আগামী ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত। মেলায় ১৫টি নির্মাণসামগ্রী এবং ৩০টি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে।

মেলার সিঙ্গেল এন্ট্রির প্রবেশ ফি ৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। মাল্টিপল এন্ট্রির প্রবেশ ফি ১০০ টাকা। সিঙ্গেল এন্ট্রি টিকিটে একবার ও মাল্টিপল এন্ট্রি টিকিটে পাঁচবার মেলায় প্রবেশ করা যাবে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ক্রেতা দর্শনার্থীরা মেলায় প্রবেশ করতে পারবেন। মেলা উপলক্ষে এন্ট্রি টিকিটের ওপর র্যাফেল ড্রতে থাকছে আকর্ষণীয় পুরস্কার।

২০০১ সাল থেকে ঢাকায় রিহ্যাব হাউজিং ফেয়ার শুরু হয়। এছাড়া চট্টগ্রামে ১৪টি মেলা সফলভাবে সম্পন্ন করেছে রিহ্যাব। প্রতিষ্ঠানটি ২০০৪ সাল থেকে বিদেশে হাউজিং ফেয়ার আয়োজন করে আসছে। এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের ১২টি, যুক্তরাজ্য, দুবাই, ইতালির রোম, কানাডা, সিডনি, কাতারের একটি করে এবং দুবাইতে দুটি রিহ্যাব হাউজিং ফেয়ার সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

এসব মেলা আয়োজনের মাধ্যমে রিহ্যাব দেশে-বিদেশে গৃহায়ণ শিল্পের বাজার সৃষ্টি এবং তা প্রসারের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখছে। জাগোনিউজ২৪

মন্তব্য